Connect with us

অল্টাকয়েন

হার্ডওয়্যার ওয়ালেট কি? সেইফপাল হার্ডওয়্যার ওয়ালেট রিভিউ

Published

on

সেইফপাল হার্ডওয়্যার ওয়ালেট

বিটকয়েন ওয়ালেট বলতে আমরা বিটকয়েন সংরক্ষণ করার ডিভাইস বুঝাই। বিটকয়েন কিংবা অন্যান্য ক্রিপ্টোকারেন্সির জন্য হার্ডওয়্যার ওয়ালেট সর্বোত্তম। আজকের এই আর্টিকেলে আমরা সেইফপাল হার্ডওয়্যার ওয়ালেট নিয়ে বিস্তারিত লিখব।

হার্ডওয়্যার ওয়ালেট কি?

হার্ডওয়্যার ওয়ালেট হল ক্রিপ্টোকারেন্সি সংরক্ষণের একটি নিরাপদ ওয়ালেট। হার্ডওয়্যার ওয়ালেটে আপনার প্রাইভেট কী অফলাইনে সংরক্ষণ করা হয় যেটা একটা সফটওয়্যার ওয়ালেটে কিংবা অন্য যে কোন হট ওয়ালেটে অনলাইনে সংরক্ষণ করা হয়। অনলাইনে সংরক্ষণ নিরাপদ নয় কারণ অনলাইনে কেউ আপনার ডিভাইস (পিসি, মোবাইল) এর এক্সেস নিতে পারে এবং আপনার প্রাইভেট কী চুরি করে নিতে পারে। আর যে কোন ওয়ালেটের প্রাণ হল প্রাইভেট কী; প্রাইভেট কী যার কাছে থাকবে সেই ক্রিপ্টোকারেন্সির মালিক বলা যায়। সুতরাং, অনলাইনের সাথে যেসব ওয়ালেট সংযুক্ত সেসব ওয়ালেটে বেশি পরিমাণ ক্রিপ্টোকারেন্সি সংরক্ষণ করা কতটা ঝুঁকিপূর্ণ তা নিশ্চয়ই এতক্ষণে বুঝতে পেরেছেন। কেউ যাতে আপনার প্রাইভেট কী চুরি করতে না পারে কিংবা আপনার বিটকয়েন তথা অন্যান্য ক্রিপ্টোকারেন্সি চুরি করতে না পারে, সেজন্য আপনার উচিত হার্ডওয়্যার ওয়ালেট ব্যবহার করা।

সেইফপাল হার্ডওয়্যার ওয়ালেট রিভিউ

আমরা মোটামুটি কম বেশি সবাই সেইফপাল ওয়ালেটের সাথে পরিচিত। সেইফপালের মোবাইল ভিত্তিক এই ওয়ালেটটি একটি হট ওয়ালেট যা অনলাইনের সাথে সংযুক্ত। কিন্তু আপনি চাইলে ব্যবহার করতে পারেন সেইফপাল হার্ডওয়্যার ওয়ালেট যা ব্যবহার করে আপনি আপনার ক্রিপ্টোকারেন্সিকে নিরাপদ রাখতে পারেন।
সেইফপাল মুলত বাইন্যান্সের সাথে অংশীদারী ব্যবসা করছে। বাইন্যান্স হল ক্রিপ্টোকারেন্সি জগতে সর্বোত্তম এক্সচেঞ্জগুলোর মধ্যে অন্যতম। সেইফপাল হার্ডওয়্যার ওয়ালেট এর মাধ্যমে আপনি খুব সহজেই আপনার ক্রিপ্টোকারেন্সি সংরক্ষণ এবং লেনদেন করতে পারবেন। বলাবাহুল্য, সবগুলো লেনদেনই আপনি করতে পারবেন অফলাইনে অর্থাৎ সরাসরি অনলাইনে আপনার ওয়ালেটকে সংযুক্ত না করেই আপনি লেনদেন করতে পারবেন যার কারনে আপনার ক্রিপ্টোকারেন্সি হ্যাক কিংবা চুরি হয়ে যাওয়ার কোন সম্ভবনাই নেই বলতে পারেন।

সেইফপাল ওয়ালেট ক্রয় করুন

কিভাবে সেইফপাল ওয়ালেট ব্যবহার করবেন?

আপনাকে ছবিতে দেয়া এইরকম একটি ডিভাইস ক্রয় করতে হবে। এই ডিভাইসের সাথে আপনি পাবেন একটি ক্যাবল যেটা দিয়ে আপনি ওয়ালেট চার্জ দেবেন। এছাড়া, সাথে একটি সুন্দর কাগজ পাবেন যেখানে আপনি আপনার পাসফ্রেজ কিংবা ১২/১৮/২৪ শব্দের রিকভারী কোড লিখে রাখতে পারবেন।
প্রথমেই আপনি আপনার ওয়ালেট অন করবেন। আপনার ভাষা নির্বাচন করবেন। প্রসঙ্গত, এইখানে এখনো বাংলা ভাষা নেই। সুতরাং, আমাদের ইংরেজি নির্বাচন করতে হবে। কেউ যদি অন্য ভাষায় দক্ষ হয়ে থাকেন, তাহলে সেটাও নির্বাচন করতে পারেন। এর পরের প্রসেসটি খুবই সহজ কিন্তু গুরুত্বপূর্ণ।
১. আপনার হার্ডওয়্যার ওয়ালেটে নতুন সিড কী/রিকভারী কী/পাস্ফ্রেজ কী জেনারেট করুন, পিন সেট আপ করুন এবং এইগুলো অফলাইনে সংরক্ষণ করুন। অফলাইনে সংরক্ষণ বলতে কোথাও কোন ইলেকট্রনিক ডিভাইস ছাড়া সংরক্ষণকে বোঝায়।
আপনার সেইফপাল হার্ডওয়্যার ওয়ালেট এই সাথে সেইফপাল মোবাইল এপটি কানেক্ট করতে হবে। কি ভাবছেন? যদি এপটি কানেক্ট করাই লাগে তাহলে হার্ডওয়্যার ওয়ালেট কিভাবে হল? মোটেও সেরকম কিছু নয়। এই এপটির সাহায্যে আসলে আপনি শুধু বলবেন কি করতে হবে, বাকি টা হার্ডওয়্যার ওয়ালেটের কাজ। সফটওয়্যার তথা এপটির কাজ হচ্ছে দিক নির্দেশনা দেয়া। সে যাই হোক, আপনি কিউ.আর কোড এর সাহায্যে আপনার হার্ডওয়্যার ওয়ালেটকে দিক নির্দেশনা দেয়ার জন্য এন্ড্রয়েড এপটিকে অনুমতি দিন।

উপরের এই দুইটি ভিডিও থেকে আপনি খুব সহজেই আপনার হার্ডওয়্যার ওয়ালেট ব্যবহার করতে হবে তা শিখে নিতে পারেন। তবে মনে রাখবেন, আপনি অবশ্যই সিড কী/রিকভারী কী/পাস্ফ্রেজ কী অফলাইনে সংরক্ষণ করবেন।

সেইফপাল ওয়ালেট রিভিউ

সেইফপাল আমার মতে অন্যান্য হার্ডওয়্যার ওয়ালেট থেকে উত্তম। সেইফপাল ছাড়া লেজার ন্যানো, ট্রেজর ওয়ালেট খুবই জনপ্রিয়। সব মিলিয়ে আমি সেইফপাল হার্ডওয়্যার ওয়ালেটকেই সাজেস্ট করবো। কেন সেটা নিচের পার্থক্যগুলো দেখলেই বুঝতে পারবেন।
১. নিরাপত্তাঃ হ্যাকিং এর বিরুদ্ধে সেইফপালের রয়েছে সুন্দর একটি নিরাপত্তা সিস্টেম। সেইফপাল ওয়ালেটে প্রাইভেট কী সংরক্ষণ করা থাকে। সেটা এক্সেস করার জন্য কেউ যদি বিভিন্ন মালওয়্যার এটাক করে থাকে, সেইফপাল ওয়ালেট তখনই প্রাইভেট কী গুলোকে মুছে দিতে সক্ষম। এ ক্ষেত্রে আপনার প্রাইভেট কী হ্যাকাররা চুরি করতে পারবে না। যেহেতু আপনার কাছে সিড কী/রিকভারী কী/পাস্ফ্রেজ কী রয়েছে, আপনি যে কোন সময় এই ওয়ালেট রিকভার করতে পারবেন। এ ছাড়াও সেইফপাল হার্ডওয়্যার ওয়ালেটে আপনার কোনরকম ওয়াইফাই এড করার দরকার নেই।
২. দাম এবং অন্যান্য খরচঃ বর্তমানে একটি সেইফপাল হার্ডওয়্যার ওয়ালেটের দাম প্রায় ডলার যদিও এইটা ডিসকাউন্টেড দাম। সাধারণত এর দাম প্রায় ৬০ ডলার। বর্তমানে একটি ট্রেজর ওয়ালেটের দাম ৫৮ ডলার এবং একটি লেজার ন্যানো ওয়ালেটের দাম ৭০ ডলার। দামের দিক থেকে সেইফপাল অনেক সস্তা। সেইফপালে যে কোন দুইটি প্রোডাক্ট অর্ডার করলেই পাচ্ছেন ফ্রি শিপিং। এ ছাড়াও, সেইফপাল পাঠানো হয়ে থাকে সরাসরি আপনার পোস্ট অফিসে যা আপনাকে দেবে কাস্টমস এর ঝামেলা থেকে মুক্তি।
৩. ব্যবহারঃ সেইফপাল হার্ডওয়্যার ওয়ালেট ইন্সটল থেকে শুরু করে ব্যবহার করা একদমই সোজা। অনেকটা সেকেলে বাটন ফোন ব্যবহার করার মত। খুব সহজ এবং সাবলীল। একজন নতুন ব্যবহারকারীও খুব সহজেই সবকিছু বুঝতে পারবেন।

কিছু অসুবিধা

যদিও সেইফপাল অনেক ভালো হার্ডওয়্যার ওয়ালেট হিসেবে আমি সাজেস্ট করব, তবে এর কিছু অসুবিধা রয়েছে যেগুলো আমি ব্যক্তিগতভাবে অপছন্দ করি। যেমন- যখন সেইফপাল কোন নতুন ক্রিপ্টোকারেন্সি লিস্ট করে কিংবা যখন কোন আপগ্রেড করার প্রয়োজন পড়বে তখন আপনাকে অনেকটা ঝামেলা পোহাতে হবে। এইটা কিউ.আর কোডের মাধ্যমে সম্ভব নয় কারন সেইপাল ওয়ালেটে কোনরকম ওয়াইফাই সঙ্গযোগ করার দরকার পরে না। এইটা অবশ্য নতুন যারা তাদের কাছে ঝামেলার মনে হবে। যারা একটু প্রো তাদের জন্য এইটা সহজ।

সবকিছু মিলিয়ে, বিশেষ করে দাম এবং সিকিউরিটির দিক বিবেচনা করে আমরা বলতেই পারি সেইফপাল হার্ডওয়্যার ওয়ালেট মোটামুটি আমাদের জন্য উত্তম একটি ওয়ালেট। এ নিয়ে আপনাদের যদি কোন প্রশ্ন থাকে তাহলে আমাদের প্রশ্ন করে জানাতে পারেন।

সেইফপাল ওয়ালেট ক্রয় করুন

Continue Reading
2 Comments

2 Comments

  1. Malam90

    August 20, 2021 at 7:32 pm

    ধন্যবাদ সুন্দর একটা রিভিউ করার জন্য।

    সেইফপল হার্ডওয়্যার ওয়ালেট এখনও মেটামাস্কে কানেক্ট করা যায়না। শুধু Ledger ও Trezor কানেক্ট করা যায় দেখলাম। এখন সেইফপল কর্তৃপক্ষের উচিৎ দ্রুত মেটামাস্কের সাথে কন্টার্ক করে সমাধান করা যাতে ব্যবহারকারীরা সুবিধা পায়।

  2. admin

    August 27, 2021 at 1:03 am

    কিছুদিন আগে সেইফপাল একটা সার্ভে করছে। ওইখানে ফিডব্যাকে এড করতে পারেন। সার্ভেটা এখনো শেষ হয়নি।

মতামত দিন

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Trending

Copyright © 2021. All rights reserved.