Connect with us
20220205-223038-0000

অল্টকয়েন

প্লে টু আর্ন (Play to Earn)কি? গেম খেলে অনলাইনে আয়

Published

on

প্লে টু আর্ন গেম খেলে অনলাইনে আয়

প্লে-টু-আর্ন (Play to Earn), শুনেই বোঝা যাচ্ছে এর মানে কী হতে পারে; আয়ের জন্যে খেলা। এখন আয়ের জন্যে খেলা বলতে এখানে কী বোঝানো হচ্ছে আসলে? সহজ ভাষায় বলতে গেলে কোনো গেম খেলে যদি আপনি অনলাইনে আয় করতে পারেন তাহলে সেটাই প্লে টু আর্ন। আপাতদৃষ্টিতে এটা অসম্ভব মনে হলেও ব্লকচেইনের কল্যাণে গেম খেলে অনলাইনে আয় সহ এখন অনেক কিছুই সম্ভব যা হয়তো আমাদের কল্পনার বাইরে।

প্লে টু আর্ন (Play to Earn) দিয়ে কি অনলাইনে আয় করা যায়?

১। আসলেই কি গেম খেলে টাকা ইনকাম করা যায়? জ্বী যায়, কিছু উদাহরণ নিয়েই আজকের এই লেখা।

২। ইনভেস্ট করা লাগে নাকি? হ্যাঁ লাগতে পারে। তবে ফ্রি টু প্লে গেম এরও অস্তিত্ব আছে। তবে সত্য বলতে যেসব গেমে ইনভেস্ট করতে হয় সেসবের চাইতে এখানে ইনকাম করার পন্থা ও রেটও বেশ কম হবে, এটাই স্বাভাবিক। ইনভেস্টের কথা শুনে চমকাবেন না, এটা জুয়া টাইপের কিছু না। তবে এটুকু মনে রাখবেন, ইনভেস্ট করার প্রথম শর্ত হলোঃ যে পরিমাণ অর্থ হারাতে রাজি আছেন, সে পরিমাণই ইনভেস্ট করবেন। ক্রিপ্টো মার্কেট অনেক ভোলাটাইল, এক সেকেন্ডে যেমন কোটিপতি হওয়ার সম্ভাবনা আছে, তেমন সেকেন্ডেই নিঃস্ব হওয়ারও সমান সম্ভাবনা আছে। এটুকু মাথায় রাখবেন।

৩। ইনভেস্ট করলে লাভ আসবে এমন কোনো গ্যারান্টি আছে? না নেই, তবে যদি গেম নিতান্তই টাকা মেরে দিয়ে চলে না যায়, সময় বেশি লাগলেও ভবিষ্যতে প্রফিট করার সম্ভাবনা থাকবেই। আপনার প্রাইমারি টার্গেট হওয়া উচিত গেম খেলা, খেলাটা এনজয় করা। একই সাথে আপনি অল্প অল্প করে কিছু টাকা ইনকামও করতে থাকলেন। একটা ভালো গেম সহজে মার্কেট থেকে উঠে যাবেনা। ধরে নিন আপনি দেখলেন বর্তমান রেটে একটা গেমে ৫০০ ডলার ইনভেস্ট করলে ৫ মাসে মূলধন ফেরত পাওয়া যায়। কিন্তু রেট এতটাই কমে গেল যে মাস দুয়েক পরে দেখলেন আপনার আরো ৮ মাস সময় লাগবে মূলধন ফেরত পেতে। এভাবে ১০ মাসে আপনি মূলধন ফেরত পেলেন। এরপর থেকে আজীবন কিন্তু আপনার ইনকাম চলতেই থাকবে, থামবে না। মনে করুন গেমটি আপনি আরো ২ বছর খেলতে পারলেন, আপনার ভালো প্রফিটও হয়ে গেল।

যদিও এটা যৌক্তিক উদাহরণ না, তাও দিইঃ আপনি হয়তো পাবজির রয়াল পাস কিনলেন। এই টাকা কিন্তু আপনি কখনো ফেরত পাবেন না। কিন্তু আপনার গেমটি ভালো লাগে, তাই আপনার যায় আসেনা, আপনি প্রতি সিজনেই হয়তো রয়াল পাস কিনতেই থাকেন। তেমন যদি একটা প্লে টু আর্ন গেমেও সেম কাজ করেন, কমপক্ষে বিনোদনের সাথে নিজের টাকা ফেরত পাওয়ার সুযোগ থাকে।

৪। ওরা আমাকে টাকা দিবে কীভাবে? আমার ইনভেস্ট করা টাকা থেকেই? ডিপেন্ড করে। কিছু ক্ষেত্রে তা-ই। তবে বেশিরভাগ ক্ষেত্রে তা নয়। কেননা বেশিরভাগ গেমের নিজস্ব টোকেন থাকে ব্লকচেইনে। এই টোকেনগুলোর সাপ্লাই ও ডিমান্ডও থাকে, যার ফলে এগুলার কিছু না কিছু ভ্যালু আসে। একই সাথে গেম খেলতে প্রয়োজনীয় জিনিসপাতি কিনতে (ক্যারেক্টার, ল্যান্ড) আপনার মার্কেটপ্লেস ব্যবহার করতে হবে। মার্কেটপ্লেসের ফি থাকে যা থেকেও প্রজেক্ট টাকা আয় করতে পারে। সুতরাং এটা সরাসরি পনজি স্কীম নয়। তবে পনজির কিছু কিছু ব্যাপার এর মধ্যে আছে।

৫। আচ্ছা বুঝলাম, এবার একটু কয়েকটা গেমের নাম বলেন দেখি? আমার পার্সোনাল ফেভারিট অ্যাক্সি ইনফিনিটি (Axie Infinity)। এটা বলা যায় বিশ্বের সবচেয়ে বড় প্লে টু আর্ন গেম। ২.৩ মিলিয়ন মানুষ প্রতিদিন এই গেমটি খেলে। এই গেম খেলতে আপনাকে তাদের মার্কেটপ্লেস থেকে ৩টি অ্যাক্সি কিনতে হবে। অ্যাক্সি (Axie) হলো পোকেমনের মতো দেখতে একধরণের NFT বা Non Fungible Token. আশা করি বর্তমানে NFT নিয়ে যত মাতামাতি হচ্ছে, আপনারা জানেন এটা কী। তো যাইহোক, ৩টি অ্যাক্সি দিয়ে আপনি নিজের টিম গঠন করতে পারবেন। এই টিম দিয়ে আপনি অ্যারেনা-তে প্রতিপক্ষ খেলোয়াড়দের মোকাবিলা করবেন। জিতলে পাবেন SLP coin, হারলে আপনার লস নেই। তবে জিতলে আপনার রেটিং (MMR – Match Making Rating) বাড়বে, হেরে গেলে কমে যাবে, তবে আপনি চাইলে আবার ভালো খেলে রেটিং বাড়াতে পারবেন। রেটিং অনুসারে ঠিক করা হয় একটি ম্যাচ জিতলে আপনি কত SLP পাবেন। অ্যাক্সি ইনফিনিটি একটি বিশাল টপিক, আপনারা চাইলে এটা নিয়ে আরো বিস্তারিত জানাতে পারব। কারো মনে যদি প্রশ্ন জাগে যে Axie গুলোর দাম কত, তার উত্তর হলো এটাও ক্রিপ্টো মার্কেটের মতো ওঠানামা করে। তবে বর্তমানে SLP প্রাইস অনেক কম হওয়ার কারণে অ্যাক্সিগুলোর দামও কমতির দিকে। ৩০০-৫০০ ডলার খরচ করলেই ভালো টিম তৈরি করা যায়। ভালো টিম দিয়ে আপনি ডেইলি ১৫০-২৫০ SLP ইনকাম করতে পারবেন যা বর্তমান রেটে ৩ – ৪.৫ ডলারের মতো। অর্থাৎ আপনাকে হয়তো ৪-৫ মাস খেলে মূল্ধন তুলে আনতে হবে। অনেকের কাছে এটা অনেক মনে হলেও এটুকু জানবেন যে খুব কম বিজনেসই আছে যা ৪-৫ মাসে মূল্ধন তুলে আনতে পারে। আর মূল্ধন ওঠার পর যা ইনকাম করবেন সবই প্রফিট। সাথে সাথে যদি খেলাটিতে পারদর্শী হতে পারেন তাহলে আরো বিভিন্নভাবে ইনকাম করা সম্ভব।

অ্যাক্সি বাদে Gala Games, Sorare, Mobox, CryptoBlades এসবের নাম এই মুহূর্তে মাথায় আসছে। আপনার আরো জানা থাকলে কমেন্ট করে জানাতে পারেন। এছাড়া playtoearn.net থেকে ঘুরে আসতে পারেন।

পরিশেষে বলবো যারা গেমার আছেন, হাতে বেশ কিছু টাকা আছে এবং গেমিং এর পাশাপাশি এক্সট্রা আর্নিং এর সুযোগ চান তারা প্লে টু আর্ন গেমসগুলোকে একবার সুযোগ দিয়ে দেখতে পারেন। ব্লকচেইনের কল্যাণে এখন কত কিছুই না সম্ভব। তবে অবশ্যই সাবধান থাকবেন, বুঝেশুনে কাজ করবেন। গত বছরের মাঝামাঝি সময়ে একটা ভালো অ্যাক্সি টিমের দাম ছিল ১৫০০ ডলার বা তারও বেশি। বর্তমানে ৩০০-৫০০ ডলার। SLP এর প্রাইসও অনেক কমে গেছে তখনকার চাইতে। ওই সময়ে বাইরের দেশের (বিশেষ করে ফিলিপাইনের) অনেকে নিজের চাকরি ছেড়ে দিয়ে এই গেম খেলা শুরু করে, অনেকে আবার লোন নেয় অ্যাক্সি কেনার জন্য। বর্তমানে তাদের মাথায় হাত। এটা থেকে শিক্ষা পাওয়া যায় যে কখনোই এমন পাগলের মতো কাজ করবেন না। শুধু সেটুকুই ইনভেস্ট করবেন যা আপনার সাধ্যের মধ্যে এবং পুরোটা হারালেও আপনার ক্ষতি যাতে না হয়।

যেকোনো প্রশ্ন কমেন্টে জানাতে পারেন, সাধ্যমতো উত্তর দেয়ার চেষ্টা করব। অ্যাক্সি নিয়ে বিস্তারিত জানতে চাইলে সেটিও জানাবেন, আরো বিস্তারিত লিখবো। আর কেউ যদি এইসন গেল খেলে অনলাইনে আয় করতে আগ্রহী হন, তাহলেও জানাতে পারেন, টিম বিল্ডিং ও কোচিং এর ক্ষেত্রে সাহায্য করতে পারব কেননা আমি এটা খেলি এবং বেশ ভালোই খেলি বলা যায়।

Continue Reading
Click to comment

মতামত দিন

Your email address will not be published.

ট্রেন্ডিং পোস্ট

Copyright 2021-22. All rights reserved.